ইউএসএ এক্সচেঞ্জ ভিজিটর ভিসা আবেদন!

এক্সচেঞ্জ ভিজিটর ভিসা (বিনিময় পরিদর্শক ভিসা) প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারী বিদেশি নাগরিকদের স্বাগত জানায় আমেরিকা। অন্য ভিসা আবেদনের মতোই এই ভিসার জন্য আবেদনের সময়ও বেশ কিছু বিষয়ের দিকে মনোযোগ দিতে হয়। এই ভিসার জন্য আবেদনের আগে সব বিনিময় পরিদর্শককে একটি অনুমোদিত প্রকল্প উদ্যোক্তার দ্বারা গৃহীত হতে হবে। পরে আবেদনকারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অথবা প্রকল্পের উদ্যোক্তার কাছ থেকে পাওয়া সব নথিপত্র আবেদনের সঙ্গে জমা দিতে হবে।

শিক্ষা, শিল্প ও বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে ব্যক্তি, জ্ঞান ও দক্ষতার বিনিময়কে উৎসাহিত করাই বিনিময় পরিদর্শক বা ‘জে’ ভিসা প্রোগ্রামের মূল উদ্দেশ্য। যেকোনো শিক্ষাস্তরের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, গবেষক, যেকোনো সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ব্যক্তি কিংবা শিক্ষানবিশ, চিকিৎসাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের পেশাজীবীসহ ভ্রমণ, পর্যবেক্ষণ, পরামর্শ, প্রশিক্ষণ খাতের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিবর্গ এই ভিসা কার্যক্রমের আওতাভুক্ত। এ ক্ষেত্রে জে-১ ভিসার আবেদন করতে হয়। এ ছাড়া জে-১ ভিসাধারীদের ওপর নির্ভরশীলদের জন্যও পরিদর্শক ভিসায় আমেরিকায় আসার সুযোগ রয়েছে।

নাগরিকদের পতি/পত্নী ও অনূর্ধ্ব ২১ বছর বয়সী অবিবাহিত সন্তান, যারা মূল ‘জে-১’ ভিসা ধারকের আমেরিকায় বসবাসকালে তার সঙ্গে থাকতে চায়, তাদের ‘জে-২’ ভিসা প্রয়োজন। এ ছাড়া জে-১ ভিসাধারীর পরিবারের সদস্য, যারা মূল ভিসা ধারকের সঙ্গে আমেরিকায় বসবাস করতে চান না, কিন্তু ছুটিতে দেখা করতে আসতে চান, তাঁরা পরিদর্শক (বি-২) ভিসার জন্য আবেদনের যোগ্যতা পেতে পারেন।

জে-১ ভিসাধারীর ওপর নির্ভরশীল জে-২ ভিসাধারীরা আমেরিকায় কাজ করতে পারবেন না, যদি না তাঁরা মার্কিন নাগরিকত্ব ও অভিবাসন সার্ভিসের (ইউএসিআইস) এমপ্লয়মেন্ট অথোরাইজেশন ফর্ম আই-৭৬৫ অনুযায়ী আবেদন ফাইল করেন। ফর্ম আই-৭৬৫ এর জন্য রিভিউ আবশ্যক। এ ক্ষেত্রে জে-২ ভিসাধারীর কাজ করার অনুমতি থাকতে হবে। ইউএসসিআইসের ওয়েবসাইটে থাকা ‘এমপ্লয়মেন্ট অথোরাইজেশন’ শীর্ষক পিডিএফ ফাইলে এ সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য রয়েছে। নিচে জে ভিসা আবেদনের নিয়ম বিস্তারিত তুলে ধরা হলো—

আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি: একটি ননইমিগ্রেন্ট ভিসা ইলেকট্রনিক অ্যাপ্লিকেশন (ডিএস-১৬০) ফর্ম পূরণ করতে হবে। এ বিষয়ে আরও তথ্যের জন্য ডিএস-১৬০-এর ওয়েবপেজটি দেখুন।

ভ্রমণের জন্য একটি বৈধ পাসপোর্ট থাকতে হবে, যার বৈধতার মেয়াদ আমেরিকায় আপনার পরিকল্পিত বসবাসের সময়ের পর অন্তত ছয় মাস থাকবে (যদি না দেশভিত্তিক চুক্তির দ্বারা ছাড়া পেয়ে থাকেন)। যদি আপনার পাসপোর্টে একাধিক ব্যক্তি অন্তর্ভুক্ত থাকেন, তাহলে যারা ভিসা চাইছেন, তাদের প্রত্যেককে আবেদন জমা দিতে হবে এবং তাদের নিজস্ব পাসপোর্ট থাকতে হবে।

আবেদনের আগের অনধিক ছয় মাসের মধ্যে তোলা একটি ২”/২” (৫সেমি/৫সেমি) ছবি। যদি আপনার ‘জে’ প্রোগ্রাম মার্কিন সরকারের উদ্যোগে না হয় (যেখানে প্রোগ্রামের কোড শুরু হয় ‘জি’ দিয়ে), তাহলে আপনাকে অন-অভিবাসী ভিসা আবেদনের ফি হিসেবে ১৬০ ডলার পরিশোধ করে, তার রসিদ আবেদনের সঙ্গে যুক্ত করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনাকে আপনার ফর্ম ‘আই-৯০১’ সেভিস মূল্য প্রদান করতে হবে।

সেভিস ওয়েবসাইটে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। যদি একটি ভিসা দেওয়া হয়, তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনার জাতীয়তার ওপর ভিত্তি করে একটি অতিরিক্ত ভিসা ইনস্যুরেন্স রেসিপ্রোসিটি মূল্য ধার্য হতে পারে। আপনাকে ভিসা ইনস্যুরেন্স রেসিপ্রোসিটি মূল্য প্রদান করতে হবে কিনা এবং এই মূল্যের পরিমাণ কত, সে বিষয়ে জানতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবপেজটি সহায়তা করবে।

আপনার ইউএস প্রোগ্রামের কাছ থেকে প্রাপ্ত একটি অনুমোদিত ডিএস-২০১৯ সংযুক্ত করতে হবে। এ ছাড়া আপনাকে সাক্ষাৎকারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার জমা দিতে হবে আবেদনের সঙ্গে। পাশাপাশি আপনার দেওয়া তথ্যের সমর্থনে অন্য যেকোনো কাগজপত্র আপনি সংযুক্ত করতে পারেন।

আবেদন করার নিয়ম: ধাপ-১ ননইমিগ্রেন্ট ভিসা ইলেকট্রনিক অ্যাপ্লিকেশন (ডিএস-১৬০) ফর্মটি পূর্ণ করুন। ধাপ-২ ভিসা আবেদনের ফি পরিশোধ করুন। ধাপ-৩ নির্দিষ্ট ওয়েবপেজে আপনার অ্যাপয়েন্টমেন্টটি বুক করুন। এ ক্ষেত্রে পাসপোর্ট নম্বর, ভিসা আবেদন ফি পরিশোধের রসিদে থাকা নম্বর ও ডিএস-১৬০ কনফারমেশান পেজে উল্লেখিত দশ (১০) সংখ্যার বারকোড নম্বর দিতে হবে আপনাকে।

ধাপ-৪ আপনার ভিসা সাক্ষাৎকারের তারিখ ও সময়ে ইউএস দূতাবাস বা কনস্যুলেটে উপস্থিত থাকুন। আপনাকে অবশ্যই আপনার অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটারের একটি অনুলিপি সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে। একই সঙ্গে আপনার ডিএস-১৬০-এর কনফারমেশান পেজ, গত ছয় মাসের মধ্যে তোলা একটি ছবি এবং বর্তমান ও পুরোনো সব পাসপোর্ট সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে। এগুলো ছাড়া আবেদন গৃহীত হবে না।

সহায়ক কাগজপত্র: সাক্ষাৎকারে কনস্যুলার অফিসার যেসব বিষয় বিবেচনা করবেন, তার মধ্যে সহায়ক নথিগুলো অন্যতম। কনস্যুলার অফিসার প্রতিটি আবেদন পৃথকভাবে দেখেন এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় পেশাগত, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও অন্যান্য বিষয়গুলো বিবেচনা করেন।

এ ক্ষেত্রে আমেরিকা ভ্রমণের উদ্দেশ্য, পারিবারিক পরিস্থিতি ও নিজ দেশে আপনার পরিকল্পনা ও সম্ভাবনার দিকগুলোও বিবেচনা করা হয়। এ কারণে কোনো অবস্থাতেই নকল নথি জমা দেবেন না। জালিয়াতি বা ভ্রান্ত তথ্যের কারণে আপনি ভিসার জন্য চিরতরে অযোগ্য বলে বিবেচিত হতে পারেন। মনে রাখতে হবে আমেরিকার দূতাবাস বা কনস্যুলেট আপনার দেওয়া তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

সাক্ষাৎকারের সময় নিজ দেশে দৃঢ় অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থা এবং শক্ত পারিবারিক বন্ধনের বিষয়টি নিশ্চিত করা গেলে এ ধরনের ভিসা পাওয়া তুলনামূলক সহজ হয়। কারণ এটি আমেরিকার প্রশাসনকে এ বিষয়ে আশ্বস্ত করে যে, আপনি সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের সমাপ্তিতে নিজ দেশে ফিরে যাবেন। এ ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক সচ্ছলতা সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য দিতে হবে, যা প্রমাণ করে যে, প্রথম বছরের শিক্ষার যাবতীয় খরচ বহন ও ওই সময়ে আমেরিকায় বসবাসের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যয়ভার বহনের মতো পর্যাপ্ত অর্থ আপনার কাছে আছে।

এ ক্ষেত্রে ব্যাংকের আসল খতিয়ান ও ব্যাংক বই দেখাতে হবে। কোনো অনুলিপি গৃহীত হবে না। কেউ আপনার ব্যয় বহনে সম্মত হলে, তার সঙ্গে আপনার সম্পর্কের প্রমাণ প্রদর্শন করতে হবে। এ ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সনদ ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সাম্প্রতিকতম আসল ট্যাক্স ফর্ম ও ব্যাংকের বই কিংবা ফিক্সড ডিপোজিটের প্রশংসাপত্র আনতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রমাণ হিসেবে গ্রেডসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সনদ (আসল কাগজপত্র অগ্রাধিকার পাবে), পাবলিক পরীক্ষার প্রশংসাপত্র (এ লেভেল ইত্যাদি) ও এসএটি, টিওইএফএলসহ বিভিন্ন পরীক্ষার সনদ সঙ্গে আনতে হবে।

নির্ভরশীলদের জন্য সহায়ক কাগজপত্র: নির্ভরশীল সমেত আবেদনকারীদের নিম্নলিখিত নথিপত্র জমা দিতে হবে— আপনার জীবনসঙ্গী এবং/বা সন্তানের সঙ্গে আপনার সম্পর্কের প্রমাণ (যেমন বিয়ে ও জন্মসনদ) প্রত্যেক জীবনসঙ্গী বা সন্তানদের কাছে অবশ্যই ফর্ম ডিএস-২০১৯ থাকতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা হলো, দূতাবাসে সাক্ষাৎকারে জন্য যাওয়ার সময় কোনো কাগজপত্র সিলবদ্ধ অবস্থায় নেওয়া যাবে না।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই নিবন্ধ কোনোরকম আইনি পরামর্শ নয়। এটি কেবলমাত্র ইউএসসিআইএস ও ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব স্টেটের ওয়েবসাইটে থাকা তথ্যের সন্নিবেশ মাত্র। লেখক: ব্যারিস্টার-অ্যাট-ল, নিউইয়র্ক প্রবাসী সেল: (৯২৯)৩৯১-৬০৪৭; ই-মেইল: expa.expe@gmail.com

তথ্যসূত্র: প্রথমআলো ডটকম।

Check for details
SHARE