সাত ঘন্টার বেশী কোন ভাবে বেডে থাকা নয়

আমাদের অনেকেই অনেক দীর্ঘ সময় বেডে কাটাই। ঘুমানোর সময়টুকু বাদেও আমাদের অনেকে বেডে শুয়ে বসে থেকে সময় পার করি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ব্যবহার ছাড়াও এ সময়ে আমরা বেডে শুয়ে বসে বিভিন্ন কাজ করি। যা মোটেও উচিৎ নয়। আমাদের অবচেতন মন অতিরিক্ত সময় বেডে থাকার কারনে অলসতাকে খুব সহজে গ্রহন করে। যার প্রভাব পরবর্তীতে শারীরিক অঙ্গভঙ্গিতেও প্রকাশ শুরু হয়। কোন একটি কাজ করব করব করে আর করা হয়ে ওঠে না। অকারনে অলস সময় পার করার মধ্যে ভাললাগা শুরু হয়।

অতিরিক্ত সময় বেডে থাকার কারনে শরীর মন দুটোই বেডের প্রতি আলাদা টান অনুভব করতে থাকে। সারাদিন ঘুম ঘুম একটা ভাব অনুভুত হতে থাকে। এ সময়ে বিভিন্ন ধরনের চিন্তা আপনাকে প্রভাবিত করে। শারীরিক ভাবে ক্লান্ত করে তোলে। এমনকি অকারনে অহেতুক চিন্তা আপনাকে টেনশনে ফেলে দেয়। আপনার বেডে থাকার এ সময়ে বাহিরের কাজের পরিবেশ থেকে দুরে থাকার কারনে আরও বেশী সময় বেডে কাটানোর প্রবনতা তৈরী হয়। যা আপনার দৈনন্দিন কাজের ওপর প্রভাব ফেলার পাশাপাশি আপনাকে একাকী থাকারও অভ্যাসে পরিনত করতে চলে। যার প্রভাব দীর্ঘ মেয়াদে আপনার শরীর ও মন দুটোকেই ক্ষতিগ্রস্থ করে তোলে।

অলসতাকে দুর করার জন্য নিজেকে ব্যস্ত রাখা হচ্ছে সবচেয়ে সহজ উপায়। সেই সাথে আপনাকে অবশ্যই কিছু শারীরিক পরিশ্রমের কাজ করতে হবে। এজন্য প্রতিদিন খুব সকালে বেড ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিন। সেই সাথে অবশ্যই তাড়াতাড়ি বেডে গিয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করুন। অতিরিক্ত রাত জেগে সকালে বেড ছাড়লে শরীরে ক্লান্তি অনুভব হবে। ঘুম ঘুম ভাব থেকে যাবে। দিনের কোন কাজেই আপনি মনোযোগ দিতে পারবেন না। ঘুম থেকে উঠার পর আপনাকে কিছুটা সময় এক্সারসাইজ করতে হবে। এতে করে আপনার শরীর পরিশ্রম করার একটা ম্যাসেজ পেতে থাকবে। কিছুদিন গেলে আপনি অনুভব করতে পারবেন পরিশ্রমের কাজ গুলোতে আগের মত খুব বেশী পরিশ্রম মনে হচ্ছে না। কাজের মধ্যে কষ্টের অনুভুতির বদলে আলাদা একটা আনন্দ পেতে শুরু করেছেন।

প্রতিদিনের কাজের পরিকল্পনা আগের দিন রাতেই করে রাখুন। পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজে নেমে পড়ুন। কোন ভাবেই সময়ের অপচয় করবেন না। অলসতার সাথে প্রথম আপনাকে জিতে উঠতে কষ্ট হবে। শরীর মন কোনোটাই আপনাকে সায় দিবে না। কিন্তু নিজেকে উদ্যোমী করে চলার শুরু করতে পারলেই আপনি জিতে যাওয়া শুরু করবেন। কমপক্ষে তিন মাস আপনি অলসতাকে পাত্তা না দিয়ে এগিয়ে চলতে পারেন তবে আপনি নিজেই অনুভব করতে পারবেন আপনি নিজের সাথে জিততে শিখে গেছেন।

অলসতাকে দূরে রাখার জন্য প্রতিদিনের কাজের কতটা আপনি শেষ করেছেন তার হিসেব রাখুন। সেই সাথে আগের দিনের থেকে বেশী কাজ করার চেষ্টা করুন। নিয়মিত সুষম খাদ্য তালিকায় রাখুন। নিজের কাজ নিজে করার অভ্যাস তৈরী করুন। না পারতে আপনার কোন কাজ অন্যকে দিয়ে করানোর চিন্তা করবেন না। দৈনিক কোন ভাবেই বেডে সাত ঘন্টার অধিক সময় থাকবেন না। অহেতুক সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে সময় ব্যয় করবেন না। ঘুমানো ব্যাতিত অন্য কোন কাজ বেডে শুয়ে বসে করবেন না। কাজের সময় চেয়ার টেবিল কিংবা মেঝেতে শতরঞ্জি রেখে বসে কাজ করুন। আর হ্যা সব সময় নিজেকে একটি ম্যাসেজ দিতে থাকুন আপনার কাজ আপনি নিজেই করতে সক্ষম। এবং আপনি সবসময় একজন পরিশ্রমী ব্যাক্তি। তো শুরু হোক অলসতার বিপরীতে চলা। শুভকামনা থাকলো আপনার জন্য।

মোটিভেশনাল লেখক:
মোঃ মাসুদুর রহমান (মাসুদ)
উদ্যোক্তার খোঁজে ডটকম।

Check for details
SHARE