যে কোন কাজে মনযোগ ধরে রাখা জরুরী…

খেতে বসেছেন। প্লেটে ভাত মাখিয়ে চলেছেন সেই কখন থেকে খেয়াল নেই। খেলার মাঠ, বন্ধুদের সাথে আড্ডা, প্রেমিকার সাথে ঘুরাঘুরি কিংবা অন্য কোন অনর্থক চিন্তা। মায়ের ধমকে মনযোগ এল প্লেটে। খেতে শুরু করলেন। চিন্তা বা কল্প রাজ্যের মধ্যে আমরা প্রায়ই ডুবে যাই অজান্তে। ঠিক যেমনটা নামাজে দাঁড়ালে বেশীর ভাগ মানুষের চিন্তা শক্তি কাজ করে বাইরের জগতে।

মনযোগকে কেন্দ্রে নিয়ে আসুন সবার প্রথমে। লিখাটি পড়তে পড়তে অজান্তে অন্য কোথাও হারিয়ে যাবেন না।
এবার কেন্দ্রকে লক্ষ করে বৃত্তকে রুপ দেওয়ার চেষ্টা করুন। আপনি যে কাজটি যখন করবেন তার প্রতি সর্বোচ্চ মনযোগী হোন। খাবার টেবিলে খাওয়ার শুরু থেকে শেষ অবধি খাওয়া বাদে অন্যদিকে মন দেওয়ার প্রয়োজন নেই। খেলার মাঠে ভাল কিংবা খারাপ খেললে দর্শক কি বলবে সে চিন্তা বাদ দিয়ে পূর্ণমনযোগে খেলুন। নামাজে দাঁড়িয়ে যাকে খুশি করার জন্য, যার আনুগত্য প্রকাশের উদ্দেশ্যে পাঁচ ওয়াক্ত হাজিরা দিচ্ছেন তার কথা স্মরণ না করে বাইরের চিন্তায় মগ্ন থাকলে সেই নামাজ নিশ্চয় আপনার উপকারে আসবে না।

প্রেমিকার সাথে গল্প করার সময় একটু অন্যমনস্ক থাকেন। শুধু সেই মানুষটা একটু বুজতে পারুক আপনার চিন্তার কেদ্রবিন্দু অন্য কোথাও। তারপরের ঘটনা মোবাইল কোম্পানীর আয় বাড়বে আর আপনার ব্যাক্তিগত পকেটের স্বাস্থ্য খারাপ হতে শুরু করবে। পড়ার টেবিলে বসলে কোথাও আমার হারিয়ে যাওয়ার নেই মানা। এমন অবস্থায় মাঠে গিয়ে সরিষা ফুল দেখতে হবে না আপনাকে। পরীক্ষার হলে সরিষার তেল আর চোখের জল এক হয়ে যাবে।

ব্যপার না। একটু ঝেড়ে কাশি। কোন ভাবেই আপনি প্রথম অবস্থায় মনযোগ কেন্দ্রবিন্দুতে রাখতে পারবেন না। আপনাকে হারিয়ে যাওয়ার মধ্যে নিজেকে ফিরিয়ে আনতে হবে। সবার প্রথমে নিজেকে স্মরণ করিয়ে দিন আপনি কি কাজ করছেন এই মুহুর্তে। বাহিরের নানা ঘটনা-দুর্ঘটনার চিন্তা রাজ্যের সীমানা থেকে আবার ফিরে আসুন। আপনি নিজেকে নিজে কাজ দিয়ে রাখুন। যতক্ষণ না আপনি আপনার কাজটি শেষ করতে পারছেন ততক্ষন অন্য চিন্তা নয়। তারপরও ভুলে যাবেন এটাই বাস্তবতা। একটা নির্দিষ্ট সময় পর নিজেকে পুনঃপুন ফিরিয়ে আনার মাধ্যমে আপনি যে কোন কাজের কেন্দ্রবিন্দুতে নিজেকে স্থির করতে পারবেন খুব সহজে।

কাজের মধ্যে ব্রেক দেওয়া খুব জরুরী। তবে সব ধরনের কাজের ক্ষেত্রে নয়। কাজের ফাঁকে ছোট্ট বিরতি আপনাকে আলাদা রিফ্রেশমেন্ট এনে দিবে। এ সময়ে আপনি হালকা নাশতা, চা-কফি, কিংবা ক্ষুদে আড্ডাও জমাতে পারেন। তবে তা যেন কোনক্রমেই দীর্ঘায়িত না হয়। ফোনে দীর্ঘক্ষন কথা বলতে যাবেন না। এই ছোট্ট যন্ত্রটি মুহুর্তে আপনার মনযোগ অন্যত্র সরিয়ে নেয়। ফোনের ওপাড়ে যে মানুষটা কথা বলছে তার যথাযথ সাড়া প্রদান করুন কিন্তু কোন ভাবেই উদ্বিগ্নতা, কিংবা অতি উৎসাহ দেখাতে যাবেন না। তাহলে আপনার কাজের প্রতি মনযোগ নিমিষেই অন্যত্র প্রবেশ করবে।

লেখক:
মাসুদুর রহমান মাসুদ
উদ্যোক্তার খোঁজে ডটকম।

Check for details
SHARE