যেভাবে শিল্প স্থাপনে এসএমই ফাউন্ডেশনের সহায়তা পাবেন!

এসএমই ফাউন্ডেশন হলো সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। এটি কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান নয়। দেশের ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে এবং তাদের সহায়তা করতে কাজ করে এসএমই ফাউন্ডেশন। এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটি ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তাদের উৎপাদনমুখী কার্যক্রমকে সহজ করার লক্ষে সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করে দেয়।

তবে প্রতিষ্ঠানটি নিজ থেকে কোনো ঋণ দেয় না। তারা গ্রাহককে ব্যাংকের সঙ্গে সংযুক্ত করে দেয়, যাতে গ্রাহক সহজে ব্যাংক থেকে চাহিদা অনুযায়ী ঋণ পেতে পারেন। এ বিষয়ে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে এসএমই ফাউন্ডেশনের চুক্তি রয়েছে।

এসএমই ফাউন্ডেশনের সুপারিশে বিভিন্ন দেশের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের ৫০ হাজার থেকে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত জামানতবিহীন ঋণ দেয়। এ ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশ। এ ক্ষেত্রে অন্য কোনো ফি নেওয়া হয় না। উদ্যোক্তা নিজস্ব উদ্যোগে ঋণ নিতে গেলে নানা ধরনের ফি দিতে হয়।

এর পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটির আওতায় ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো উৎপাদনমুখী ক্ষুদ্র বা মাঝারি কাস্টার বেইজড (চার-পাঁচ কিলোমিটার এলাকার মধ্যে একই ধরনের ৪০-৫০টি প্রতিষ্ঠান থাকলে তাকে কাস্টার বেইজড শিল্পাঞ্চল বলে) শিল্পে ৫ লাখ থেকে ৩০ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ দেয়। জামানতবিহীন এ ঋণেরও সুদের হার ৯ শতাংশ।

এসএমই ফাউন্ডেশনের সহকারী ব্যবস্থাপক আব্বাস আলী বলেন, দেশের ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এসএমই ফাউন্ডেশনের নির্দেশনা অনুযায়ী তাদের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তির শর্তাবলির আলোকে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তাদের ঋণ দেয়। এসব ঋণগ্রহীতাকে এসএমই ফাউন্ডেশন সার্বণিকভাবে পর্যবেণে রাখে। উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন পণ্য বাজারজাত, বিপণন ও বিভিন্ন মেলায় অংশ নেওয়ার সুযোগ করে দেয়।

এসএমই ফাউন্ডেশন সম্পূর্ণ সরকারি তহবিল দ্বারা পরিচালিত হয়। ২০০৬-২০০৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ সরকার প্রতিষ্ঠানটিতে ২০০ কোটি টাকা তহবিল দেয়। ওই তহবিল থেকেই ঘূর্ণায়ন ভিত্তিতে উদ্যোক্তাদের ঋণ দিচ্ছে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটি নিয়মিত মনিটরিং করে বিধায় সাধারণত কোনো ঋণ খেলাপি হয় না। এ ছাড়া উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দিয়ে শিল্প স্থাপনে সহায়তা করে।

তথ্যসূত্র: আমাদের সময় ডটকম।

Check for details
SHARE