দৃষ্টিভঙ্গি বদলান দেশ ও মানুষের কল্যানে…

নিজের দেশকে প্রাণের চেয়েও বেশী ভালবাসি। দেশের সার্বভৌম স্বাধীনতা রক্ষার প্রশ্নে আমরা সবাই এক জায়গায়। উন্নত দেশের সারিতে নিজের দেশকে দেখার সুপ্ত বাসনা আমাদের সকলের প্রাণে। আর এই দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করতে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছে অগনিত হাত। বুদ্ধিদীপ্ত তরুনেরা তাদের শানিত মেধার সমন্বয় করে বিশ্বের দরবারে দেশকে তুলে ধরছে প্রতিনিয়ত। দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে সীমান্তে নির্ঘুম প্রহরীর দৃষ্টি। দেশের স্বার্থে ব্যাক্তিক স্বার্থ পরিহার করতে প্রস্তুত দেশপ্রেমিক।

কিন্তু দেশের জন্য সত্যিই আমরা কতটুকু ব্যাক্তিক স্বার্থ পরিহার করতে পারছি। যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা ফেলছি। সেই ময়লার পাশ দিয়ে হেঁটে যেতে গিয়ে র্দুগন্ধে নাক চেপে ধরছি। আবার যেখানে সেখানে থুতু, বা মুত্র ত্যাগও করছি। জীবানু ছড়ানোর পাশাপাশি পরিবেশ নষ্ট করছি।  ফুটওভার ব্রীজ ব্যবহার না করে যত্রতত্র রাস্তা পার হচ্ছি। নিজেই আইন ভঙ্গ করে কাজ করছি আর দোষারোপ করছি দেশের নামে। বাহিরের দেশের সাথে নিজের দেশকে তুলনা করছি আর বলছি আমার দেশে কিছুই নেই।

আমরা আমাদের নীতি নৈতিকতাকে প্রতি মুহুর্তে বিসর্জন দিচ্ছি। সহযোগীতার  বদলে নিজ স্বার্থ সিদ্ধির প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। সাম্প্রতিক সময়ে দেখা বেশ কিছু সড়ক দুর্ঘটনায়  কবলিত ব্যক্তিকে উদ্ধার করার বদলে তার ভিডিও ধারন কিংবা সেলফি তুলে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম গুলোতে নিজেকে তুলে ধরা কিংবা লাইক পাওয়ার জন্য সরব উপস্থিতি। অপরাধ করেও প্রচার করতে দ্বিধাবোধ করছি না।

অভুক্ত পথশিশুকে কিংবা ভিক্ষুককে রাস্তায় দেখছি। তার অবস্থান নিয়ে কষ্ট প্রকাশ করছি কিন্তু তার জন্য পকেট থেকে দশটা টাকা খরচ করে খাবার কিনে দিতে পারছি না। প্রতিদিনই বাসে চলাচল করছি নারী, বৃদ্ধ কিংবা স্কুলগামী কোন একটি শিশুকে দাড়িয়ে যেতে দেখেও নিজে বসে থাকছি। কাউকে লাঞ্ছিত হতে দেখেও তার পাশে দাড়াতে দাড়াতে পারছি না। বিবেককে ধামা নামের বস্তুটি দিয়ে চাপা দিয়ে চলেছি দৃষ্টিকে অন্তরালে রেখে।

মা সমতুল্য যে দেশ তার প্রতি আমাদের কর্তব্য কি আমরা সেটাই বোধহয় জানি না। মাতৃভুমির সেবা করার জন্য অনেক বড় কিছু করতে হবে তেমনটি নয়। দেশের জন্য আমরা প্রত্যেকেই আমাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে সাধ্যমত করতে পারি। নিজের বাড়ির অাঙিনায় একটি গাছ লাগানো, বাড়ির আশপাশের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখা, ট্রাফিক আইন মেনে চলা, অসহায়দের সাধ্যমত সাহায্য করা, ছিন্নমুল পথশিশুদের জন্য পড়াশুনার ব্যবস্থা করা, মানুষের সাথে ভাল ব্যবহার করা থেকেই কেন শুরু করছি না দেশ সেবার। প্রত্যেকের প্রতিদিনের কাজের দায়িত্ব সঠিক ভাবে করার মাধ্যমে করতে পারি দেশ সেবা।

আজ থেকেই শুরু হোক। আপনাকে দিয়েই শুরু হোক। দিনে অন্তত একটি ভাল কাজ করুন দেশের জন্য। আপনাকে দেখে আপনার পাশের বন্ধুটিই এগিয়ে আসবে। এভাবেই আমরা আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে মূল্যবোধ সৃষ্টি করতে পারব। বিবেককে জাগ্রত করার মাধ্যমে দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য কিছু করতে পারব। আপনি আপনার জায়গা থেকে দৃষ্টিভঙ্গি বদলে ফেলুন দেখবেন সমাজ বদলে যাচ্ছে।

মাসুদুর রহমান মাসুদ/ উদ্যোক্তার খোঁজে ডটকম।

Check for details
SHARE