টাকার হাত পা নেই যে এমনিতে আসবে…

টাকা! এটাকে নুতন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার মত কিছু নেই। শুরুতেই বলে নেই শিরোনাম দেখে বিভ্রান্ত হবে না। টাকা উপার্জন করা সহজ কিছু নয়। শুধু বুদ্ধিমত্তা কিংবা শুধু পরিশ্রম দিয়ে টাকা আসে না। টাকার গাছ লাগাতে হয়। গাছ লাগানো ছাড়া টাকা আসে না। হ্যা টাকার গাছ। অবাক হচ্ছেন নিশ্চয়। টাকার গাছটি যোগ্যতা দক্ষতার দ্বারা তৈরী হয়। সততার সাথে পরিচর্যা করতে হয়।  অপেক্ষা করতে হয় ধৈর্য্যের সাথে গাছে টাকা ধরার জন্য।

এবার আসুন বলি সত্যিকারের পিছনের গল্পটা। যোগ্যতা টাকা আনে। টাকা এমনি এমনি আসে না। পড়াশুনা করেছেন গাতনুগতিক। এক পৃষ্ঠা বাংলা লিখতে গেলেও বানান ভুল হয়ে যায়। ইংরেজীর যোগাযোগ দক্ষতা কজনের আছে। মাষ্টার্স শেষ করা এমন অনেক ছাত্রকে পাওয়া যাবে যারা ঠিকমত ইংরেজী দেখে পড়তেও উচ্চারণে ভুল করে। কাধে ব্যাগ ঝুলিয়ে স্কুল কলেজ ভার্সিটি শেষ করে সার্টিফিকেট একটা হাতে নিয়ে নিজেকে শিক্ষিত দাবী করে গলা ফাটান চাকুরী নাই বাজারে। দোহাই দেন অভিজ্ঞতা ছাড়া কেউ চাকরী দিতে চায় না। দৃশ্যমান কিংবা অদৃশ্যমান মামা নেই বলে চাকুরী হয় না। বলি যার হয় তার একেই  হয়, যার হয়না তার একশতেও হয় না। এবার বলেন, একবার না পারিলে দেখো শতবার কেন বলেছেন! আপনাকে বলছি তিন নম্বর হাতের কারিশমা কি না দেখালেই নয়?

অজুহাত ছাড়ুন। দেশে চাকুরী নেই বলে বলে আড্ডা গরম করছেন অন্যদিকে চাকুরীর নিয়োগ প্রক্রিয়ায়  কর্মকর্তারা যোগ্য লোক খুঁজে মাথার ঘাম পায়ে ফেলছেন। বলবেন তো অভিজ্ঞতা ছাড়া কেউ চাকুরী দিতে চায় না। চাকুরী পাওয়ার জন্য নুন্যতম যোগ্যতাটুকুও তো অর্জন করতে পারেন নি। যে কোম্পানীতে নিয়োগ পরীক্ষা দিচ্ছেন সে কোম্পানী সম্পর্কে কোন ধারণা না নিয়েই হাজির হচ্ছেন ইন্টারভিউ বোর্ডে। এমনকি যে পদে আবেদন করছেন সে পদের কাজ কি, চাকরী পেলে কি ধরনের দায়িত্ব পালন করতে হবে সে সম্পর্কে ধারনাও নেই। কম্পিউটারে বেসিক নলেজ কতটুকু জানতে চাইলে বলে বসেন সার্টিফিকেট আছে, চর্চায় নেই অনেক দিন। যে আপনাকে নিয়োগ দিবে সে নিশ্চয় আপনাকে চর্চা করানোর জন্য বেতন দিয়ে আপনাকে পালবে না।

চাকরী করবেন না উদ্যোক্তা হবেন সেখানে তো আরো বিপত্তি। বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন। উল্টায় ফেলবেন ব্যবসায় করে। ইনোভেটিভ আইডিয়া ব্যবসা শুরুর সাথে সাথে উপরে ওঠার সিড়ি না লিফট পেয়ে যাবেন। ডানা লাগিয়ে আকাশের ওপারে একটা বাড়ি করে সেখান থেকে টাকা উড়ায়ে পৃথিবীতে ফেলবেন। আপনার বন্ধু বান্ধব যারা আছে তারা নিচ থেকে কুড়াবে। অথচ জানেন না মুরগী কোথা থেকে উৎপাদিত হয়ে কিভাবে চিকেন ফ্রাইয়ে পরিনত হয়ে আপনার প্লেটে দৃশ্যমান হয়। ব্যাংক লোন নামের সসটা দেই স্যার চিকেন ফ্রাইয়ের সাথে ভাল লাগবে!

কতটা যোগ্য আপনি? অপরিচিত একটা মানুষের সাথে কিভাবে কথা বলবেন সেটা নিয়েই দ্বিধা দ্বন্দে থাকেন। ওহ এই জন্যই তো প্রেম ঘটিত সংঘাতটায় জড়াতে পারেননি। ব্যবসা কিভাবে করবেন যেখানে হাজারও অপরিচিত মানুষকে বন্ধুতে পরিনত করতে হবে। এক পড়াশুনা নিয়ে সবসময় ঘাড় নিচু করে বাইয়ের সাথে লেপ্টে ছিলেন। বইয়ের বাহিরের জগৎটা তো দেখেন নি। বাবার টাকা ছাড়া একটা দিন নিজের টাকায় চলেন নি। বন্ধু নামের সবাইকে নিয়ে ফুর্তি করেছেন কাউকে যাচাই করেননি। এমনকি নিজেকেও যাচাই করেননি। কারন আপনি ভবিষ্যতে কি হবেন সেটাই তো জানা ছিল না।

কোন একটি পন্য ব্যবহার করছেন। কেনার সময় ব্র্যান্ডের পন্য কিনা সেটা যাচাই করছেন কিন্তু কিভাবে এটি ব্র্যান্ডে পরিণত হয়েছে খোঁজার চেষ্টা করেননি। কোথায় কিভাবে পন্যটি তৈরৗ হচ্ছে, বাজারজাত হচ্ছে পেছনের গল্পটি জানতে চান নি। আপনি আসলে নিজেই জানেন না আপনাকে কি জানতে হবে। কারন আপনি ছোট বেলা থেকে কৌতুহল হরিয়েছেন। প্রশ্ন করতে শিখেন নি উত্তর কঠিন হলে সমাধান করবেন কিভাবে এই ভয়ে। যোগ্যতা আসবে কোথা থেকে। যতটুকু না যোগ্যতা দেখিয়েছেন তাও আবার চর্চার অভাবে ভোতা ছুড়ি হয়ে বসে আছে। দক্ষতা আসবে কোথা থেকে? যদি একই কাজ পুনঃপুন না করেন!

চাকুরীটা আমি পেয়ে গেছি বেলা শুনছো। বেলা শুনছে না। কারন বেলা ঠিকই পেরিয়ে গেছে। সময় আপনাকে পেছনে ফেলে দিচ্ছে প্রতি মুহুর্তে। আপনার অলসতা আপনার টাকার গাছের শেকড়ে পচন ধরাচ্ছে। আপনার অদূরদর্শীতা আপনার পারদর্শিতাকে বাধাগ্রস্থ করে টাকার গাছে আগাছার জন্ম দিচ্ছে। আপনার ভয় আপনার টাকার গাছের বেড়ে ওঠাকে অপুষ্টিতে ভোগাচ্ছে। আপনার দূর্বলতা গুলোকে দক্ষতায় পরিনত করতে না পারার কারনে টাকার দেখা মিলছে না গাছে।

লেখক:
মাসুদুর রহমান মাসুদ/উদ্যোক্তার খোঁজে ডটকম

Check for details
SHARE