জ্ঞানী হতে পারেন যে উপায়ে!

জ্ঞানী হয়ে কেউ জন্মায় না। মানুষ তার বুদ্ধিমত্বাকে কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যায়, যা তাকে জ্ঞানী প্রমাণিত করে। আর যারা তাদের এই জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে সামনে যেতে পারে তারাই প্রকৃত সফল মানুষ। অল্পতেই যারা ব্যর্থতার গ্লানি নিজের কাঁধে তুলে নেয় তারা কখনোই সামনে এগিয়ে যেতে পারে না। তবে নিজের যোগ্যতাকে চিনে তাকে নিজের মধ্যে ধারণ করলে আপনিও হয়ে উঠতে পারবেন একজন জ্ঞানী ব্যক্তিত্ব।

একাগ্রতা:

একাগ্রতা মানুষের অনেক বড় একটি অস্ত্র। আপনি আপনার মনোযোগের মাধ্যমে অসাধ্যকেও সাধন করে ফেলতে পারবেন। শুধু চাই আপনার প্রবল ইচ্ছা আর আকাঙ্ক্ষা। মন দিয়ে চাওয়া কোনো কাজ যেমন বিফলে যায়না তেমনি একাগ্রতার সাথে কোনো কিছু আয়ত্বে আনতে চাইলে তা আসতে বাধ্য। একাগ্রতার সাথে ধীরে ধীরে শিখে ওঠা কাজ আপনাকে করে তুলবে জ্ঞানী। আপনার জ্ঞানকোষকে করবে সমৃদ্ধ।

সবার মতো না শেখা :

শেখার কোনো শেষ নেই। শিখতে চাই আমাদের মন থেকে আশা ইচ্ছা। তবে এই শেখার কাতারে তো থাকে অনেকেই। তাহলে সবাই কেন সঠিকভাবে সবকিছু শিখতে পারেনা? এর মূল কারণ হচ্ছে সবাই একইভাবে চেষ্টা করে। ফলে নতুন কোনো রাস্তা সম্পর্কে কেউ জানেনা। জানতে না চাওয়ার এই ইচ্ছা মানুষকে জানার জগৎ থেকে দূরে রাখে। যারা নতুনভাবে নতুন কিছু শিখতে চায় তারা নানা বাঁধার সম্মুখীন হয় এবং রাস্তাও বের করে আর অনেক কিছু জেনে নিজের জ্ঞান ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করতে পারে।

শুনতে চাওয়ার ইচ্ছা :

বলতে তো সবাই পারে। কিন্তু শুনতে পারার ক্ষমতা খুব কম মানুষেরই থাকে। আপনি যখন শুধু বলেই যাবেন আপনি কিছু শিখতে পারবেন না। আপনার জ্ঞানভাণ্ডারে যা আছে তা এক পর্যাযে শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু আপনি যখন কাউকে মন দিয়ে শুনবেন আপনি অনেক নতুন নতুন তথ্য তার কাছে থেকে জানতে পারবেন। যাতে আপনার ধৈর্য্য যেমন বাড়বে তেমনি অনেক কিছু জানতেও পারবেন।

অধ্যবসায় :

আপনি যখন কোনো নতুন পরিবেশে যাবেন তখন আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন। কিন্তু এই শেখার মাঝেও অনেক সময় ঘাটতি রয়ে যায়। তখন চোখের সামনে থাকা অনেক কিছুই আমাদের কাছে ধরা পড়ে না। ফলে জীবনের অনেক পর্যায়ে আমরা জানা জিনিস মনে করতে পারে না। তাই নিজের জ্ঞানভাণ্ডার বৃদ্ধি করতে চাই অধ্যবসায়।

তথ্যসুত্র: ইন্টারনেট।

Check for details
SHARE