জীবনে ভাল মানুষ হবার লক্ষ কয় জনের…?

বিসিএস ক্যাডার, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হয়ে জীবনে সফলতা অর্জন করতে হবে। জীবনে তোমাকে অনেক অর্থের মালিক হতে হবে। টাকা তোমার জীবনের একমাত্র লক্ষ। উড়ন্ত টাকা পকেট বন্দী করতে হবে এই যখন অবস্থা তখন ভাল মানুষ হতে হবে এমন লক্ষ জীবনে কয় জনের? আমাদের বেশীরভাগ মানুষের মধ্যে ছোট্ট একটা প্রবলেম আছে। সফলতাকে আমরা অর্থ, সম্পদ, যশ খ্যাতিতে বিচার করি।

যে যত বেশী অর্থ সম্পদের মালিক সে জীবনে ততই সফল, ততই সুখী এটা ভেবে নেই। সুখী হওয়ার দৌঁড়ে সফলতা পাওয়ার চেষ্টায় যত মানুষ আছে তার থেকে আরও বেশী মানুষ দৌঁড়াচ্ছে প্রতিনিয়ত সুখের খোঁজে। বিত্তশালীরা টাকার মধ্যে সুখ খুঁজছে, মধ্যবিত্তেরা টাকার সাথে ব্যালেন্স করে সুখ খুঁজছে, সর্বশেষ শ্রেণী পেটের ক্ষুধা মেটানোর টাকায় সুখ খুঁজছে। সুখের তাড়না অবশ্য সবার আছে। যদিও ভিন্নতা শুধুমাত্র অবস্থান গত।

উদ্দেশ্যের ভিন্নতা শুধু একটা জায়গায়। কবি কুসুমকুমারী দাসের ”আদর্শ ছেলে” মনে আছে কি? সাদা প্রাণে হাসি মুখে কর এই পণ —”মানুষ হইতে হবে মানুষ যখন”৷ হ্যা ভাল মানুষ হতে হবে। উদ্যোমী মানুষ হতে হবে। পরিশ্রমী মানুষ হতে হবে। হাস্যোজ্বল মানুষ হতে হবে। সাহসী মানুষ হতে হবে। ধৈর্য্যশীল মানুষ হতে হবে।

মানুষের মত মানুষ হতে হবে। এক্সিডেন্ট করে আহত একজন মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ভিডিও করা কিংবা সেলফি তোলা মানুষ হওয়ার কোন দরকার নেই। দরকার নেই একজন ইভটিজার নামধারী মানুষ হওয়ার। দরকার নেই ভীরু কাপুরুষ হওয়ার। দরকার নেই মুখোশ ধারী ভাল মানুষ হবার যার কাছে রাতের আধারে নারীর সম্ভ্রম নিরাপদ নয়। দরকার নেই অন্তরালের কীট হওয়ার।

পরাজিত সৈনিকের কাছেও স্বান্তনা থাকে। ভুল ছিল সিদ্ধান্তে। এবার না হয় আপনার দৃষ্টিভঙ্গিটা বদলান। কথা দিচ্ছি সত্যিকার অর্থে জীবনে বদলে যাবে আপনার। সফলতা একটা যাত্রা। যে যাত্রার শুরু হয় ছোট ছোট অর্জনের মধ্য দিয়ে। শেষটা সীমাহীন। যশ খ্যাতির ক্ষুধা টাকার ক্ষুধার চেয়েও খারাপ। লোভ মানুষের জীবনের চুরান্ত ধ্বংস ডেকে আনে। গোবরে পদ্ম ফুল ফোটে না ফোটাতে জানতে হয়। ভাল মানুষ চাইলেই হওয়া যায় না। ভাল মানুষ হওয়ার চেষ্টায় অবিরত লেগে থাকতে হয়। নিজেকে সংবরন করতে হয়।

একটা মানুষের জীবনে কত অর্থ সম্পদ অর্জন করলে তাকে সফল বলবেন? কতগুলো পুরস্কার অর্জন করলে যশ খ্যাতির শীর্ষ আসনে বসাবেন? কত কত হিসাব মেলাতে গিয়ে সুখী জীবনটাকে অসুখী করে তুলবেন? তৃপ্ত থাকুন যতটুকু আছে তা নিয়ে। এটাই আসল সুখ। চেষ্টা করে যান অর্জনের জন্য স্বাভাবিক ভাবে। প্রতিযোগীতায় ঠেলে দিয়ে নিজেকে অতৃপ্ত করে তুলতে যাবেন না। সুখ নামের সোনার হরিণ খাঁচায় বন্দী করা তো দুরের কথা জঙ্গলে গিয়েও মঙ্গল জুটবে না।

ছোটবেলার একটা সৃত্মি আজও মনে ধরে রেখেছি। প্রাইমারী স্কুলে পড়ি। একদিন স্যার আমাকে ডেকে বলেছিলেন জীবনে কি হতে চাও? তখন বলতে পারিনি কি হব। কারন তখন আমি জানতাম না জীবনেরও একটা লক্ষ থাকে? ভ্যাবা-চ্যাকা খেয়ে স্যারের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। স্যারের কথাটি আজও কানে বাজে- স্যার বলেছিলেন “পড়াশুনা শিখে একসময় হয়ত অনেক বড় মানুষ হবে তবে ভাল মানুষ হয়ো”। টেলিভিশনে সাদা মনের মানুষ দেখে মঙ্গল গ্রহ থেকে আগমন ঘটেছে এমন ভাবার দরকার নেই। এই মানুষগুলো আমাদের সমাজের। সাদা মনের ভাল মানুষেরা নিঃস্বার্থ ভাবে সমাজের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। এরা জীবনে কিন্তু কম সুখী নয়। মনে আছে নিশ্চয়, ”ভোগে সুখ নেই ত্যাগেই প্রকৃত সুখ”।
মোটিভেশনাল লেখক:
মোঃ মাসুদুর রহমান মাসুদ
উদ্যোক্তার খোঁজে ডটকম।

Check for details
SHARE