কম খরচে থাইল্যান্ড হতে পারে আপনার দ্বিতীয় আবাসস্থল।

আকর্ষণীয় কর সুবিধায় থাইল্যান্ড হতে পারে আপনার দ্বিতীয় আবাসস্থল। নিজেদের কাজের জন্য যাদের থাইল্যান্ড যেতে হয় তারা ইচ্ছে করলে পাঁচ বছর মেয়াদে থাকার সুবিধা গ্রহণ করতে পারেন। বিশ্বের প্রায় ৮৫ শতাংশ মানুষ এই সুবিধা গ্রহণ করে থাকেন।

পৃথিবীর অন্যতম সুন্দর একটি দেশ থাইল্যান্ডে এমন স্বল্প মেয়াদে আবাসিক সুবিধা ও অবাধ প্রবেশাধিকার পাওয়ার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায় হচ্ছে ‘থাইল্যান্ড এলিট ইজি এক্সেস’। কোনো বার্ষিক ফি অথবা বয়সের বাধ্যবাধকতা না থাকায় এককালীন মাত্র ১৫ হাজার মার্কিন ডলারে যে কেউ হতে পারেন পাঁচ বছর মেয়াদে থাইল্যান্ডের বাসিন্দা।

দৃষ্টিনন্দন সমুদ্র সৈকত, চমৎকার সব স্থান এবং তুলনামূলক কম খরচে উচ্চমানের থাকার সুবিধার কারণে প্রতি বছর লাখো মানুষ থাইল্যান্ডে পাড়ি জমায়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে দেশ থাইল্যান্ড সম্প্রতি গুরুত্বপূর্ণ আর্থ-সামাজিক উন্নতি সাধন করেছে। দেশটি বর্তমানে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য আর অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি- এমন সব অনেক কারণেই সম্ভবত দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে থাইল্যান্ড সবার কাছে একটি আকর্ষণীয় স্থানে পরিণত হয়েছে।

সকল নান্দনিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য, তুলনামূলক কম খরচে জীবনযাপন, সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক অগ্রগতি এবং দারিদ্র্য নিরসনের পাশাপাশি থাইল্যান্ড যেকোনো দেশের বিত্তশালীদেরকে সবচেয়ে লোভনীয় ট্যাক্স সুবিধা প্রদান করে এবং থাইল্যান্ডই কেবল উৎসে কর কর্তন করে।

অর্জিত বৈদেশিক আয় থাইল্যান্ডে পাঠানো না পর্যন্ত করমুক্ত থাকে, যখন একই কর বর্ষে এটি অর্জিত হয়। যারা ‘দি ল্যান্ড অব স্মাইল্স’ নাম খ্যাত থাইল্যান্ডে যেতে চান তারা এখানে যথেষ্ট কর সঞ্চয়ের এই সুবিধা উপভোগ করতে পারেন।

ভ্রমণপিপাসুদের সেই প্রত্যাশা পূরণকে আরও সহজ করতে থাইল্যান্ড প্রিভিলেজ কার্ড কোম্পানি লিমিটেড (টিপিসি) কাজ শুরু করেছে। টিপিসি, ট্যুরিজম অথোরিটি অব থাইল্যান্ড-এর সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান। সহজ সেবা প্রদানকারী এই প্রতিষ্ঠান থাইল্যান্ড এলিট নামে পরিচিত। যারা থাইল্যান্ডে ভালোমানের আবাসন সুবিধা খোঁজ করেন তাদের জন্য এটি বিশেষভাবে উপযোগী।

ভ্রমণপিপাসুদের সুবিধার্থে থাইল্যান্ড এলিটের এই ধরনের কর্মসূচি বিশ্বব্যাপি এই প্রথম। এর মাধ্যমে গ্রাহকরা পাচ্ছেন কম খরচে দক্ষিণ এশিয়ার দৃষ্টিনন্দন ও দর্শনীয় দেশ থাইল্যান্ডে অবাধ প্রবেশাধিকারের সঙ্গে চমৎকার সব কমপ্লিমেন্টারি কনসিয়ার্জ সার্ভিস।

বৈচিত্র্যপূর্ণ দৃষ্টিনন্দন স্থান এবং কম খরচে বিলাসবহুল জীবনযাপনের জন্য অবসরপ্রাপ্ত অথবা পরিবারের সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতে ইচ্ছুক মানুষদের জন্য থাইল্যান্ড এলিট কাজ করে যাচ্ছে। বিশেষ আবাসিক ভিসার জন্য থাইল্যান্ড এলিট আপনার পাশে রয়েছে এবং থাইল্যান্ডে ২০ বছর পর্যন্ত থাকার অধিকার নিশ্চিত করছে।

প্রতিষ্ঠানটির সেবার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন স্তরের ‘এক্সক্লুসিভ কম্প্রিহেনসিভ’ সেবা, যা তাদের সেরা সব কনসিয়ার্জ সার্ভিস থেকে নিয়ে আসা হয়েছে। এই পুরো প্রক্রিয়াটি স্ট্রিমলাইন্ড এবং ঝামেলা মুক্ত। শুধু তাই নয়, থাইল্যান্ড এলিট ডিরেক্ট অ্যাপ্লিকেশন পোর্টাল আপনাকে দ্রুত এবং নির্বিঘ্ন আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে সাহায্য করবে।

থাইল্যান্ড এলিট সাতটি ভিন্ন ভিন্ন প্রস্তাব নিয়ে এসেছে। এগুলোর মধ্যে থাকছে পাঁচ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত রেসিডেন্স ভিসা। সবচেয়ে জনপ্রিয় তিনটি সুবিধা হচ্ছে- এলিট আল্টিমেট প্রিভিলেজ, এলিট প্রিভিলেজ এক্সেস এবং এলিটি ইজি এক্সেস অপশন।

এলিট আল্টিমেট প্রিভিলেজ অপশন গোল্ড স্ট্যান্ডার্ড, ২০ বছর বয়সের বেশি আবেদনকারীকে ২০ বছর আবাসিক ভিসার সঙ্গে কমপ্লিমেন্টারি ভিআইপি সেবা দিয়ে থাকে। এই প্যাকেজে রয়েছে ফরমায়েশী ভিআইপি সহায়তা, আতিথেয়তা এবং সরকারি কনসিয়ার্জ সার্ভিস-এর সঙ্গে কমপ্লিমেন্টারি থাইল্যান্ড গল্ফ প্যাকেজ ও স্পা চিকিৎসা। এই সুবিধায় এককালীন এন্ট্রি ফি প্রায় ৬০ হাজার ডলার এবং সঙ্গে রয়েছে বার্ষিক ফি প্রায় ৬শ’ ডলার।

এলিট প্রিভিলেজ এক্সেস সুবিধাটি আবেদনকারীর পরিবারের সঙ্গে কাটানো জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। এটি পরিবারের প্রত্যোক সদস্যের জন্য ১০ বছরের আবাসিক ভিসার সঙ্গে কমপ্লিমেন্টারি ভিআইপি সেবার নিশ্চয়তা দিচ্ছে। এর এককালীন ফি হচ্ছে- মূল আবেদনকারীর জন্য প্রায় ৩০ হাজার ডলার এবং অন্যান্য সদস্যদের জন্য ২২ হাজার ডলার। এতে কোনো বার্ষিক ফি অথবা বয়সের সীমা নেই। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে হতে পারে বাবা-মা, সৎ বাবা-মা, স্ত্রী, সন্তান এবং সৎ সন্তান।

মাত্র এক মাসের মধ্যে ভিসা পাওয়া সম্ভব এবং এসব সুবিধার সবচেয়ে সেরা বিষয়টি হচ্ছে- একবার স্ট্যাটাস নিলে পুরো সময়টিতে সেভাবেই অবস্থান করা যায়। আর থাইল্যান্ডে অবস্থান করে সহজেই প্রতি বছরে এক বছর মেয়াদ বৃদ্ধি করা সম্ভব।

থাইল্যান্ডে যারা ‘সেকেন্ড’ অথবা ‘প্রাইমারি হোম’ করতে চান এটি তাদের জন্য একটি আকর্ষণীয় সুযোগ। যখন অল্প করে হলেও সঞ্চয় করার কথা ভাবেন তখন থাইল্যান্ডে নতুন একটি বাড়ি করার মাধ্যমে কর সঞ্চয় করতে পারেন। এজন্য বিভিন্ন প্যাকেজের জন্য একটি নামমাত্র চুক্তি হয়।

আন্তর্জাতিক রেসিডেন্স এবং সিটিজেনশিপ অ্যাডভাইজরি ফার্ম হেনলি অ্যান্ড পার্টনার্স এই আবাসিক কর্মসূচিটির প্রসার ঘটাতে বিশ্বব্যাপী ছাড় দিচ্ছে।

ফার্মের দক্ষিণ এশিয়ার প্রধান ডমিনিক ভলেক বলেন, “পরিবারকে আন্তর্জাতিক মানের সুযোগ-সুবিধা দিতে এবং পরিবর্তনশীল ও অনিশ্চিত বিশ্বে ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে বিশ্বব্যাপি ব্যক্তি পর্যায়ে সেকেন্ড অথবা থার্ড রেসিডেন্স অথবা সিটিজেনশিপ পাওয়ার প্রত্যাশা বেড়েছে। সরকারও এ ধরনের উদ্ভাবনী কর্মসূচি নিয়ে অর্থনৈতিক উন্নতি, নিরাপদ বৈদেশিক বিনিয়োগের মাধ্যমে নিজদের জাতির উন্নয়ন করতে পরীক্ষিত সফল ব্যবসায়ীদের আকর্ষিত করছে।”

যারা নির্বিঘ্ন জীবনযাপন করতে ইচ্ছুক তারা অনেকেই ভাবছেন উন্নত যোগাযোগ ও যাতায়াত ব্যবস্থার কারণে নিজের দেশের বাইরে আরও কোথাও একটা বাড়ি থাকলে মন্দ হয় না। সেই ধারণা নিয়েই গত এক দশক ধরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বিভিন্নরকম প্রকল্প হাতে নিয়েছে। সেরকম একটি প্রকল্পের আওতায় আপনি পেতে পারেন থাইল্যান্ডের ২০ বছরের জন্য বিশেষ আবাসন ভিসা।

তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ২৪ ডটকম।

Check for details
SHARE