আন্তরিক প্রশংসা করুন তেল মারলে বিপদ…

তৈলাক্ত বাঁশ বেয়ে ওঠা বাঁদরের সেই অংকের কথাটা নিশ্চয় মনে আছে আপনার। যদি মনেই থাকে তবে বাঁশ বেয়ে তিন ফুট উপরে উঠতে গিয়ে এক ফুট নিচে নামার কথাও মনে আছে আপনার। বর্তমান সময়ে যদিও তৈলাক্ত বিদ্যার ব্যাপক ব্যবহার বেড়েছে। যে যেভাবে পারছে বাঁশ কি কঞ্চি তা না দেখেই তেল মারা শুরু করেছে। মজার বিষয় হল যারা তৈলাক্ত বিদ্যা মোটেও পছন্দ করেন না তারও কোন কিছু বোঝার আগে অর্ধেক তৈল খেয়ে নেন।

সে যাই হোক অফিসের কর্মকর্তারা সব ভয়ে তটস্থ। তার কারন বুলু সাহেব। অফিসের নতুন বস। প্রচন্ড রাগী। এ অবশ্য নতুন কিছু নয়। বসরা একটু রাগীই হয়ে থাকে। নয়া বস তেলবাজি একদমই পছন্দ করেন না। তার মধ্যে ঘটেছে এক তাজ্জব ঘটনা। ওয়াজাদ সাহেবকে সেদিন বস রুম থেকে বকা ঝকা করে বের করে দিয়েছেন। অপরাধ ছিল শুধু বলেছিলেন বস আপনার হাতের লেখা যেন মুক্তার দানা, কেমন ঝক…. শেষ করতে পারেননি তার আগেই বসের রাম ধমক।

এই আপনাদের জন্য অফিসের কাজকর্ম তো সব গোল্লায় গেছে। দেশের এই অবস্থাও আপনাদের জন্য। যেখানে সেখানে যাকে তাকে তেল মারেন। সুযোগ পেলেই হয়। এই আপনাদের জন্যই বাজারে তেলের দাম বাড়ছে। কি মনে করেন অফিসের কাজ রেখে আপনার দেওয়া তেল দিয়ে গোসল করার জন্য অফিসে আসি। বুকে ফুঁ দিতে দিতে বেচারা ওয়াজাদ সাহেব বসের রুম থেকে বেরিয়ে এলেন। খুব বেশী বিপদে না পড়লে কেউ আর বসের সামনে পড়েন না।

নিশা। এইতো কিছু দিন হল এই অফিসে যোগদান করেছেন। মিষ্ট ভাষী। হাস্যোজ্বল এই মেয়েটির বাড়তি কিছু গুণ আছে মানতেই হবে। অফিসের সকলের সাথে চ্যালেঞ্জ নিল। বসকে সে প্রসংশা করেই খুশি করবে। অফিসের অন্যরা তাকে সাবধান করলেন। আপনি এমনিতেই নতুন। আমাদের পুরাতনদের পারলে গিলে খায়। শুধু শুধু নতুন চাকুরীটা হারাবেন না। যদিও নিশা তার সিদ্ধান্তে অনড়। বুলু সাহেবকে যেভাবেই হোক খুশি করবেই।

এই তো সেদিন বসের কাছে গেলেন নতুন প্রোজেক্টের কিছু ফাইল সই করাতে। বস ফাইলগুলো খুব যত্ন সহকারে দেখে সই করছেন। এমন সময় নিশা বলতে শুরু করলেন বস আমি এর আগেও কয়েকটা অফিসে লম্বা সময় সার্ভিস করেছি। তবে এই প্রথম একজন ব্যতিক্রম মানুষ পেলাম যে, প্রসংশাই সহ্য করতে পারে না। স্যার বেয়াদবি নিবেন না। আপনি স্যার অন্য সবার থেকে আলাদা। আপনার মত একজন মানুষের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়ে ভাল লাগছে।

আর বলোনা নিশা। দেশটা তো তেলের সাগর হয়ে গেছে। সবাই তেলের উপর ভাসছে। এনিওয়ে এ মাসে বাড়তি সময় কাজের টাকাটা পেয়েছ তো?….!

বস না বুঝলেও আপনি তো বুঝতে পারছেন বিষয়টা বসের মাথার উপর দিয়ে গেছে। যাই হোক প্রশংসা করুন গঠনমুলক। তোষামোদ কিংবা চাটুকারীতা করার কোন দরকার নেই। প্রসংশাকে তেলবাজির পর্যায়ে নেওয়ারও কোন দরকার নেই। চাটুকারের কথা কখনও মন থেকে আসে না। তোষামোদকারী স্বার্থ উদ্ধারের জন্য ঠোটের খেলা খেলে।

সর্বোপরি প্রসংশার উৎস যদি হয় হৃদয় তবে আপনি নিঃসন্দেহে সবার প্রিয়জন হবেন।

লেখক:
মোঃ মাসুুদুর রহমান (মাসুদ)
উদ্যোক্তার খোঁজে ডটকম।

Check for details
SHARE